• মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৪ মাঘ ১৪২৯  |   ১৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

রাজনীতি হলো মানুষের কল্যাণের জন্য : এমপি আফতাব

  মো. রেজোয়ান ইসলাম, নীলফামারী

০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ১৯:০৫
রাজনীতি হলো মানুষের কল্যাণের জন্য : এমপি আফতাব
নীলফামারী-১ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকার (ছবি : অধিকার)

১০ ডিসেম্বর সমাবেশ করার জন্য বিএনপি শুরু থেকেই নয়াপল্টনের সড়ক ব্যবহারের দাবি জানিয়ে আসছিল। আর সরকার শুরু থেকেই বলে আসছিল নয়াপল্টনে সমাবেশ করতে দেওয়া হবে না। বিএনপিকে সমাবেশ করতে হবে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে। তবে সোহরাওয়ার্দীর বিষয়ে শুরু থেকেই আপত্তি জানিয়ে আসছিল বিএনপি। তারা আরামবাগ ও সেন্ট্রাল গভর্নমেন্ট স্কুলের মাঠের প্রস্তাব দিলেও পুলিশ তাতে রাজি হয়নি।

বিএনপি'র চলমান রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে নীলফামারী-১ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকার আজ দৈনিক অধিকারকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে বলেন, রাজনীতি করতে হলে সমাবেশ করতেই হবে তাতে বাঁধা নেই। সকল রাজনৈতিক দল সমাবেশ করবে। এতে কোন সময় কেউ বাঁধা দেয় নাই, শেখ হাসিনা সরকারও কখনো বাধা দেয়নি।

কিন্তু আগামীকাল দশ তারিখে বিএনপি সমাবেশের যে স্থানটা দিয়েছিল রাজধানীর নয়াপল্টনে অর্থাৎ বিএনপির কেন্দ্রীয় অফিসের সামনে। সার্বিক বিবেচনা করে জনগণের কল্যাণার্থে সমাবেশের স্থান নিয়েই প্রশ্ন। কেননা যখন সমাবেশ শুরু হবে তখন পল্টনস্ত আশপাশের সড়কে জনসমাগমের উপস্থিতির কারণে বন্ধ হবে। ফলে রাস্তাঘাট, শিল্প-কলকারখানা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ নানাবিধ জটিলতা তৈরি হয়ে জনদুর্ভোগ চরমে পৌঁছবে। ঢাকায় কোটি মানুষের বসবাসে ব্যাঘাত না ঘটে সেজন্যই সরকারের বাঁধা। তবে জনসভা করতে বাঁধা নেই। কিন্তু পল্টনের রাস্তার উপরে সমাবেশে সরকারের বিধিনিষেধ রয়েছে। সেটা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দেখছে।

রাজধানীতে পুলিশ ও বিএনপি নেতা কর্মীদের সংঘর্ষের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে দৈনিক অধিকারকে সংসদ সদস্য বলেন, বিএনপির চরিত্র সবাই জানে। বিএনপির রাজনীতিতে ইতিবাচক কোনো কিছু খুঁজে পাওয়া মুশকিল। তারা রাজনীতি করে ক্ষমতার জন্য। ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে প্রকাশ্য দিবালোকে গ্রেনেড ছুঁড়ে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা চেষ্টায় মত্ত ছিলো বিএনপি-জামায়াত। ৭৫ এর ১৫ ই আগস্ট স্বপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে যেভাবে হত্যা করা হয়েছিল তারই অংশ হিসেবে ২১ আগস্টের হত্যাকাণ্ড।

তিনি আরও বলেন, কারণ সেদিন আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ সকলেই উপস্থিত ছিল এবং একসাথে সবাইকে হত্যার জন্যই এই হামলা চালানো হয়। সেদিন শেখ হাসিনা বেঁচে গেলেও প্রাণ হারিয়ে শহীদ হয়েছিলেন মহিলা আওয়ামী লীগের তৎকালীন সভানেত্রী বেগম আইভি রহমানসহ ২২ জন নেতাকর্মী।

এমপি আফতাব, বিএনপি'র সেই চরিত্রের জন্য ''চাল, ডাল, শুকনো খাবার এবং দু'চারটা বোমা নিয়ে আগাম তাদের পার্টি অফিসে ঢুকেছে। সেখানে তারা খিচুড়ি রান্না করছে, দু চার দিন থাকবে প্রয়োজন হলে বোমার ব্যবহার করবে। এই ছিল তাদের উদ্দেশ্য। পুলিশ সত্যটা উদঘাটন করেছে। কাজেই অসৎ উদ্দেশ্য নিয়ে কখনো রাজনীতি করা যাবে না।

বর্ষীয়ান এই রাজনীতিবিদ বলেন, রাজনীতি হলো মানুষের কল্যাণের জন্য। আমরা মানুষের কল্যাণের জন্য রাজনীতি করতে চাই। মহৎ কাজের জন্য আল্লাহ রাব্বুল আলামীন সব সময় সাহায্য করেন। এদেশের জনগণ যেমন ৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় সহযোগিতা করেছেন। তেমনি শেখ হাসিনাকেও বারবার সহযোগিতা করছে। দেশের উন্নয়নে জন্য সহযোগিতা করছে। সকল মানুষকে সাথে নিয়ে আওয়ামী লীগ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জনকল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি বলেছেন, অপশক্তিকে প্রতিহত করার কোনো বিকল্প নেই। দেশকে এগিয়ে নিতে হলে অবশ্যই অপশক্তিকে রুখতে হবে। অপশক্তিকে রুখানোর জন্যই পল্টনে বিএনপির সমাবেশে প্রশাসন বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়েছে। আওয়ামী লীগ সরকার গণতন্ত্রে বিশ্বাসী।

নতুন প্রজন্মের উদ্দেশ্যে এই সংসদ সদস্য বলেন, বঙ্গবন্ধুকে জানুন, বাংলাদেশকে শিখুন এবং মুক্তিযুদ্ধকে জানুন। সেজন্য ডোমার-ডিমলা আশিটা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বাংলাদেশ স্বাধীনতা এবং মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সম্বলিত বই সরবরাহ করেছি‌। এছাড়াও, বঙ্গবন্ধু কর্ণার ও আলমিরাসহ একশত সেট বই উপহার দিয়েছি। এই কাজটা আমি করেছি। একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে এটা আমার দায়িত্ব।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: inbox.odhikar@gmail.com

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড