• বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১  |   ৩৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বেসিস কার্যালয় থেকে ল্যাপটপ ও টাকা নিয়ে পালালো চোর!

  অধিকার ডেস্ক

১৩ মার্চ ২০২৪, ০০:০০
বেসিস

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) কার্যালয়ে চুরির ঘটনা ঘটেছে। দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের অন্যতম বড় এ সংগঠনের কার্যালয় থেকে চোর ল্যাপটপ ও নগদ টাকা নিয়ে গেছে বলে এক মামলায় উল্লেখ করেছে কর্তৃপক্ষ।

চুরির ২ দিন পর অর্থাৎ ২২ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর তেজগাঁও থানায় বেসিসের ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ কাজী জাহিদুল ইসলামের করা মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ক্লোজড সার্কিট (সিসিটিভি) ক্যামেরার ভিডিয়ো চিত্রে দেখা গেছে, গত ২০ ফেব্রুয়ারি চোররা রাজধানীর কারওয়ান বাজারে বিডিবিএল ভবনের পাঁচতলায় বেসিসের কার্যালয়ে প্রবেশ করে চুরি করে। কার্যালয়ের অর্থ ও হিসাব শাখা থেকে চোররা দুটি ল্যাপটপ ও দুই লাখ টাকা নিয়ে গেছে।

এদিকে বেসিসের ২০২২-২৩ অর্থবছরের আয়-ব্যয়ের নিরীক্ষা প্রতিবেদন নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। বেসিস সূত্র জানায়, তাদের পর্ষদ সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছিল তারা মিজান অ্যান্ড কোং নামের একটি নিরীক্ষা প্রতিষ্ঠান বা অডিট ফার্ম দিয়ে তাদের হিসাব নিরীক্ষা করাবে। কিন্তু পরে তা করা হয় অধিকারী অ্যান্ড কোং নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে।

পর্ষদ সভার সিদ্ধান্ত পাশ কাটিয়ে ভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে নিরীক্ষা করানো নিয়ে আপত্তি জানিয়েছেন বেসিসের কয়েকজন পরিচালক। তারা বলছেন, এখানে নিয়ম মানা হয়নি। পাশাপাশি চুরির বিষয়টিও সর্বশেষ পর্ষদ সভায় জানানো হয়নি।

অবশ্য সংগঠনটির সভাপতি রাসেল টি আহমেদ গণমাধ্যমে বলেছেন, কোনো কিছুই আইনের বাইরে হয়নি। সংগঠনের আইন পরামর্শকের সঙ্গে কথা বলেই কাজ করা হয়েছে।

১৬ মার্চ বেসিসের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। বেসিসের সদস্যরা বলছেন, নিয়ম অনুযায়ী সভার ১৪ দিন আগে নিরীক্ষা প্রতিবেদন তাদের পাঠানো হয়। কিন্তু তার আগে পরিচালনা পর্ষদের সভায় প্রতিবেদন অনুমোদিত হতে হয়। পরিচালনা পর্ষদের একাধিক সদস্যের অভিযোগ, তাদের যে নিরীক্ষা প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে, তা পর্ষদ সভায় অনুমোদিত প্রতিষ্ঠান দিয়ে করানো হয়নি। নিরীক্ষা প্রতিবেদন পর্ষদে অনুমোদিত হয়নি।

বেসিসের পর্ষদ সভা হয় ৯ মার্চ। সভার পরদিন বিষয়টি নিয়ে বেসিসের তিনজন পরিচালক ‘নোট অব ডিসেন্ট’ অর্থাৎ আপত্তি দিয়েছেন। তারা বলেছেন, বেসিসের নিয়ম ও কোম্পানি আইন অনুযায়ী নিরীক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিবর্তন করতে হলে নিরীক্ষা প্রতিবেদনের অনুমোদনের বিষয়টি পর্ষদকে জানানো এবং বিশেষ সাধারণ সভার অনুমোদন নিতে হয়। কিন্তু এর কোনোটাই না করে সব সদস্যকে নিরীক্ষা প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে।

বেসিসের অন্যতম পরিচালক রাশাদ কবির বলেন, পর্ষদকে পাশ কাটিয়ে, ইজিএম (বিশেষ সাধারণ সভা) না করে এ ধরনের কাজ করা হলে পর্ষদের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ হবে।

পর্ষদ সভা সূত্রে জানা যায়, সভায় পর্ষদকে জানানো হয় আগের প্রতিষ্ঠান যেভাবে প্রতিবেদন তৈরি করছিল, তাতে ১ কোটি ৬ লাখ টাকার বেশি পরিমাণে কর দেওয়ার বিষয় রয়েছে। সংগঠনের স্বার্থেই প্রতিষ্ঠান পরিবর্তন করা হয়েছে।

বেসিসের আরেকজন পরিচালক মো. মোস্তাফিজুর রহমান সোহেল একটি সংবাদমাধ্যমে বলেছেন, প্রাথমিক বাছাইয়ে যে চারটি নিরীক্ষা প্রতিষ্ঠান বাছাই করা হয়েছিল, তাদের কাউকে দিয়ে নিরীক্ষা করানো হয়নি। সর্বশেষ পর্ষদ সভায় যে ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে, সেটা টেকেনি।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: inbox.odhikar@gmail.com

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড