• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ২৩ আষাঢ় ১৪২৯  |   ৩৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বেহাল তিতুমীর কলেজের শৌচাগার, চরম দুর্ভোগে শিক্ষার্থীরা

  বিনায়েক রহমান

২৯ মে ২০২২, ১৭:১০
বেহাল তিতুমীর কলেজের শৌচাগার, চরম দুর্ভোগে শিক্ষার্থীরা
বেহাল তিতুমীর কলেজের শৌচাগার। ছবি : অধিকার

যাত্রাবাড়ী থেকে সকাল নয়টায় কলেজে এসেছেন সামিয়া আকতার, থাকবেন দুপুর দুইটা পর্যন্ত। এর মধ্যে বন্ধুদের সাথে আড্ডা খুনসুঁটি চললেও প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে টয়লেটে যাওয়ার প্রয়োজনের কথা মনে হলেই যেন তার কপালে পড়ে দুশ্চিন্তার ভাঁজ! কারণ টয়লেটগুলোর বেহাল দশায় স্বস্তিতে টয়লেট করার কোনো সুযোগই নেই। এমনই হাজার হাজার শিক্ষার্থীর রোজকার দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে সরকারি তিতুমীর কলেজের টয়লেটগুলো। এ যেন আতংকের আরেক নাম।

রাজধানীর মহাখালীতে অবস্থিত সরকারি তিতুমীর কলেজ ঢাকার স্বনামধন্য কলেজগুলোর মধ্যে একটি হলেও দীর্ঘদিন ধরেই টয়লেট ব্যবহারে ভোগান্তিতে পড়ছে এখানকার হাজারও শিক্ষার্থী। প্রায়ই ব্যবহারের অনুপযোগী এই টয়লেটগুলোর দীর্ঘদিন ধরে নেই কোনো সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণ। যার ফলে প্রতিনিয়ত ভোগান্তিতে পড়ছে কলেজে আসা হাজারও শিক্ষার্থী।

সরেজমিনে দেখা যায়, নিয়মিত পরিষ্কার না করায় অপরিচ্ছন্ন ও নোংরা হয়ে আছে প্রতিটা ডিপার্টমেন্ট ও ভবনের ওয়াশরুমগুলো। ব্যবহার করার অনুপযোগী প্রায় সবকটি ওয়াশরুমই। অকেজো পানির কল, পানির সংকট, নেই পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থাও। আবার কিছু কিছু ওয়াশরুমে ভেঙে গিয়েছে পানির কলগুলো। লাইটিংয়ের ব্যবস্থা থাকলেও কোনো ওয়াশরুমে খুঁজে পাওয়া যায়নি লাইটের আলো। দেখা যায় বেশিরভাগ লাইনেরই সুইচ নষ্ট কিংবা ভাঙা।

বেশিরভাগ ওয়াশরুমেই নেই দরজা, আর থাকলেও সেটা ভাঙা কিংবা অকেজো। কলম দিয়ে চালাতে হয় দরজার ছিটকানি। এমনি জরাজীর্ণ অবস্থায় ব্যবহার করতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শিক্ষার্থীরা। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও সংস্কারের অভাবে এমনটি হয়েছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে প্রমা শর্মা নামে এক শিক্ষার্থী বলেন, কলেজের টয়লেটগুলোর অবস্থা খুবই খারাপ, বেশিরভাগ সময়ই পানির সংকট কিংবা পানি থাকেই না বলা যায়। বেশিরভাগ টয়লেটে লাইট নেই। যার ফলে অন্ধকারেই আমাদের যেতে হয়। ওয়াশরুমের বেসিনগুলোতে হাত ধোয়ার জন্য সাবান পর্যন্ত নেই। এছাড়াও স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহারের পর তা ফেলার জন্য যে ডাস্টবিনের প্রয়োজন হয় সেটিও নেই। এছাড়াও ওয়াশরুমের পরিবেশ অনেক বেশি নোংরা ও অপরিচ্ছন্ন, যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক ক্ষতিকর। কিন্তু তারপরও বাধ্য হয়ে আমাদের এই টয়লেট ব্যবহার করতে হচ্ছে।

অর্থনীতি বিভাগের মেহেরুন্নেসা মেহের জানান, ক্লাসের বাইরে বাকি সময় আমরা কমনরুমে থাকি কিন্তু কমনরুমের ওয়াশরুমের অবস্থা এত খারাপ যে তা ব্যবহারের প্রায় অনুপযোগী। দরজার লক করা যায় না। ওযু করা তো দূরের কথা, প্রয়োজনীয় কাজই সারা যায় না। এছাড়া নিচতলার ওয়াশরুমেও এত বেশি দুর্গন্ধ যে যাওয়াই যায় না। এমনকি মাঝে মাঝে ওয়াশরুমের মধ্যে কেঁচো ও বিভিন্ন ধরনের পোকামাকড়ও দেখা যায়। এছাড়াও ওয়াশরুমের অবস্থা এত নোংরা ও অপরিচ্ছন্ন যে মাঝে মাঝে পা পিছলে পড়ে যাওয়ার অবস্থা হয়।

ইংরেজি বিভাগের জুনায়েদ হাসান এ বিষয়ে বলেন, বেশিরভাগ ওয়াশরুমের পানির ট্যাপ নেই, থাকলেও ভাঙা এবং জরাজীর্ণ। দরজা-জানালাও ভাঙা বেশিরভাগ ওয়াশরুমের। কমোডের ফ্ল্যাশগুলো অকেজো ভাঙাচোরা। যা প্রায়ই ব্যবহারের অনুপযোগী।

এ বিষয়ে জানতে কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক তালাত সুলতানার সাথে যোগাযোগ করার জন্য বার বার চেষ্টা করলেও তিনি কল ধরেননি। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম হোয়াটসঅ্যাপে মেসেজ করলেও কোনো জবাব দেননি তিনি।

শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতরের গাফিলতির কারণে এসব সংস্কার হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন কলেজের উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. মহিউদ্দিন।

তিনি বলেন, আমরা ওয়াশরুম সংস্কারের ব্যাপারে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতরে আবেদন করেছি, কিন্তু আবেদনে কোনো সাড়া পাচ্ছি না। তবে কলেজ প্রশাসন থেকে কিছু কিছু ওয়াশরুমে সংস্কারের কাজ করা হয়েছে। এছাড়া শিক্ষা প্রকৌশলের সাড়া পেলে আমরা অতিশীঘ্রই এসব সংস্কার করবো বলে।

এ বিষয়ে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলীর সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও তাকে ফোন কলে পাওয়া যায়নি।

ওডি/ওএইচ

আপনার ক্যাম্পাসের নানা ঘটনা, আয়োজন/ অসন্তোষ সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- inbox.odhikar@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: inbox.odhikar@gmail.com

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড